ভালো আছি, হামলাকারীর ওপর রাগ নেই: জাফর ইকবাল

 ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) থেকে চিকিৎসা শেষে সিলেট ফিরে যাচ্ছেন বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল।
আজ বুধবার বেলা ১১ টার দিকে বিমানবন্দরে জাফর ইকবাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘হামলাকারীর ওপর আমার কোনো রাগ নেই। আমি শারীরিকভাবে সুস্থ আছি।’
অধ্যাপক বলেন, ঘটনার সময় সবাই মিলে বিশেষ করে ডাক্তার থেকে শুরু করে সবাই আমাকে যেভাবে যতœ করেছেন এবং আমাকে ভালো করে তোলার জন্য এত কষ্ট করেছেন, এত ভালোবাসা দেখিয়েছেন সেটা আমি কীভাবে প্রকাশ করব তা জানি না। আসলে আমার ছাত্ররা অস্থির হয়ে পড়েছে সেজন্য আমি ক্যাম্পাসে ফিরে যাচ্ছি। ওদেরকে এটাই বলার জন্য যে, দেখ আমি ভালো আছি।

এক্সক্লুসিভ ভিডিও পেতে এখনি সাবস্ক্রাইব বাটনে ক্লিক করুন
<<<লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন>>>

জাফর ইকবাল বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী আমাকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় এসেছেন, এত ব্যস্ততার মধ্যেও আমাকে হাসপাতালে এসে দেখে গেছেন এবং কেউ যেন হাসপাতালে আসতে না পারে, ইনফেকশন যেন না হয় সেজন্য নিজে থেকে বলে গিয়েছেন। এজন্য আমি প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।
জাফর ইকবাল বলেন, আমার মাথায় চারটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আমার হাতে স্টিচ রয়েছে। ওষুধ দেওয়া হয়েছে। ডাক্তার আমাকে বিশ্রামে থাকতে বলেছেন। আমি শারীরিকভাবে সুস্থ আছি।
হামলাকারীর ওপর কোনো রাগ নেই জানিয়ে এই অধ্যাপক বলেন, এই পৃথিবীটা অনেক সুন্দর। তাই আমি চাই আর কেউ এই কাজ না করে, খারাপ পথে না যায়। তারা যেন দেশের জন্য কাজ করে দেশটাকে আরও সুন্দর করে তোলে।
ঘটনার পর ভয় পাচ্ছেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে জাফর ইকবাল বলেন, ঘটনার আগে-পরে কোন সময়ই আমি ভয় পাই না। আমার কর্মজীবনে এর কোনো প্রভাব পড়বে না।
গত ৩ মার্চ বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) ফেস্টিভ্যালের সমাপনী অনুষ্ঠান চলার সময়ে জাফর ইকবালের ওপর হামলা করে ফয়জুর রহমান। এ সময় তার মাথায় ছুরিকাঘাত করে হামলাকারী। ঘটনার পর পরই ফয়জুর রহমানকে আটক করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।
ঘটনার পর জাফর ইকবালকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়।