‘টগি ওয়ার্ল্ড লেখার লড়াই’র খাতা দেখলেন ইমদাদুল হক মিলন

শিশুদের সুন্দর হাতের লেখা প্রতিযোগিতা ‘টগি ওয়ার্ল্ড লেখার লড়াই’র খাতা দেখা শুরু হয়েছে। প্রতিযোগিতার আয়োজন করে রাজধানীর অন্যতম শিশু বিনোদনকেন্দ্র ইনডোর থিম পার্ক ‘টগি ওয়ার্ল্ড’।

<<<লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন>>>

রোববার (১১ মার্চ) এ বিষয়ে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, প্রাথমিকভাবে ৫টি স্কুলের ২টি গ্রুপের প্রতিটি থেকে ১০টি করে মোট ১০০টি খাতা বিচারকমণ্ডলীর কাছ থেকে কথাসাহিত্যিক ও দৈনিক কালের কণ্ঠ’র সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলনের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তিনি সব খাতা সুক্ষ্মভাবে পর্যালোচনা করে তার মতামত বিচারকমণ্ডলীর কাছে জানাবেন।

পাঁচটি স্কুল থেকে সেরা তিন জনকে বাছাই করা হচ্ছে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার জন্য। আগামী জুনের মধ্যেই চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। ফাইনালে প্রথম অবস্থানকারী বিজয়ী অভিভাবকসহ সিঙ্গাপুরের ইউনিভার্সাল স্টুডিও থেকে ঘুরে আসার সুযোগ পাবে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান বিজয়ীও অভিভাবকসহ সুযোগ পাবে যথাক্রমে মালয়েশিয়ার সানওয়ে লেগুন এবং থাইল্যান্ডের কার্টুন নেটওয়ার্ক আমাজনে ঘুরে আসার।

এক্সক্লুসিভ ভিডিও পেতে এখনি সাবস্ক্রাইব বাটনে ক্লিক করুন

এ বিষয়ে বসুন্ধরা সিটি শপিং মলের ‘টগি ওয়ার্ল্ড’র হেড অব মার্কেটিং এম.এম. জসিম উদ্দিন বলেন, এই ডিজিটাল সময়ে, আমাদের সন্তানেরা খুব বেশি সময় ব্যয় করে প্রযুক্তিনির্ভর নানা ডিভাইসে। সবাই এখন ইমেইল করে, মোবাইল ফোনে বার্তা পাঠায়। তাই হাতের লেখা এখন প্রাচীন কলার অংশ মনে করা হয়। বিষয়টি এমনই উদ্বেগজনক যে, একসময় হয়ত এমন একটি প্রজন্ম গড়ে উঠবে, যারা নিজের হাতে সই পর্যন্ত করতে পারবে না ৷ তাই হাতের লেখাটা এখন বেশ জরুরি এবং এটা শেখানোর প্রতি গুরুত্ব দেওয়া উচিত৷

এ বিষয়ে ইমদাদুল হক মিলন বলেন, সুন্দর হাতের লেখা সৃজনশীলতার পরিচয় দেয়। আবার হাতের লেখা পরিষ্কার হলে তা পড়তেও সুবিধা। তাই সুন্দর হাতের লেখার জন্য ছোটবেলা থেকেই সন্তানকে উৎসাহিত করা উচিত। আর ‘লেখার লড়াই’ প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে ‘টগি ওয়ার্ল্ড’ সে কাজটিকেই আরও সহজ করে দিলো।